শনিবার - ২১ ভাদ্র ১৪২৭ - ৫ সে্প্টেম্বর ২০২০ - Sep 28, 2020
   শিল্প-সাহিত্য

বিরলপ্রজ ব্যক্তিত্ব অধ্যাপক আনিসুজ্জামান ও কিছু স্মৃতিকথা

বিরলপ্রজ ব্যক্তিত্ব অধ্যাপক আনিসুজ্জামান ও কিছু স্মৃতিকথা


শ্যামল চৌধুরী

এডিটর ইন চীফ | কাছেদূরে ডটকম

সারাবিশ্বের মতো কোভিড-১৯ নামের সংক্রামক রোগের প্রকোপে যখন ধুঁকছে জাতি, সকরুণ বাস্তবতার মুখোমুখিতে জাতি যখন চরম বিষাদগ্রস্থ, সেই সময়ে চিরবিদায় নিলেন জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান।


যার প্রয়াণে দেশের শীর্ষস্থানীয় লেখক, অধ্যাপক ও সংস্কৃতিকর্মীদের কথায় প্রকাশিত হয়েছে অভিভাবক হারানোর বেদনা।

গত বৃহস্পতিবার (১৪ মে) না ফেরার দেশে পাড়ি জমান বর্ষীয়ান বুদ্ধিজীবি, বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের শিক্ষক, ডক্টর আনিসুজ্জামান। ৮৩ বছর বয়সে তাঁর এই চলে যাওয়া বৈশ্বিক সংকটকালে হলেও নিজের পৃথিবীকে সাজিয়েছেন তিনি বিপুল ঐশ্বর্যে। তাঁর সমগ্র জীবনে ঈর্ষণীয় সব সাফল্য ও গৌরবগাঁথায় আজ তিনি উদ্ভাসিত। সেই অর্থে একটি পূর্ণ জীবনই তিনি পেয়েছিলেন। কিন্তু যদি তাঁর জীবনকে দেখি তাঁর কাছ থেকে আমাদের প্রাপ্তির নিরিখে, আমাদের আকাক্সক্ষার নিরিখে, মনে হয় আরও কিছুদিন থেকে গেলেও পারতেন!

বাংলার অধ্যাপকের পরিচয় ছাপিয়ে সাহিত্য-গবেষণা, লেখালেখি, সাংগঠনিক কার্যক্রম ও দেশ-জাতির নানা সংকটকালে দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্যের জন্য অনন্য চরিত্র হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন অধ্যাপক আনিসুজ্জামান, অনেকের চোখে তিনি ছিলেন আলোকবর্তিকা। মহান ভাষা আন্দোলন, ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থান, একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধসহ সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনের ছিলেন অগ্রসৈনিক। সাম্প্রদায়িকতা ও মৌলবাদের বিরুদ্ধে সোচ্চার আনিসুজ্জামানের হাত ধরেই এসেছে বাংলাদেশের সংবিধানের বাংলা সংস্করণ। যুদ্ধাপরাধের বিচার দাবিতে সোচ্চার আনিসুজ্জামান ছিলেন ১৯৯১ সালে গঠিত গণআদালতে অভিযোগকারীদের একজন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আগে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়েও শিক্ষকতা করেছেন আনিসুজ্জামান। আমৃত্যু তিনি ছিলেন বাংলা একাডেমির সভাপতি। দীর্ঘ কর্মজীবনে শিক্ষকতা, গবেষণা ও মৌলিক সাহিত্য রচনার পাশাপাশি একক ও যৌথভাবে অসংখ্য গ্রন্থ সম্পাদনা করেছেন অধ্যাপক আনিসুজ্জামান। ভাষা ও শিক্ষায় অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে পেয়েছেন অসংখ্য সম্মাননা।

বাংলা ভাষা ও সাহিত্যে অবদানের জন্য ১৯৭০ সালে পান বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার, ১৯৮৫ সালে সরকার তাকে একুশে পদক ভূষিত করে; সাহিত্যে অবদানের জন্য ২০১৫ সালে তিনি পান স্বাধীনতা পুরস্কার। ভারত সরকার ২০১৪ সালে তাকে পদ্মভূষণ পদক ভূষিত করে। ২০১৮ সালের ১৯ জুন বাংলাদেশ সরকার জামিলুর রেজা চৌধুরী ও রফিকুল ইসলামের সঙ্গে আনিসুজ্জামানকেও জাতীয় অধ্যাপক ঘোষণা করে। এছাড়াও ২০০৫ সালে কলকাতার রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয় তাঁকে সম্মানসূচক ডি-লিট ডিগ্রি প্রদান করে।

একজন সমাজ হিতৈষী, গণতান্ত্রিক প্রগতিশীল চেতনা, সুশীল বুদ্ধিবৃত্তিক চর্চা ও অনন্য স্বভাবমাধুর্যের স্নিগ্ধতা দিয়ে তিনি নিজেকে পরিণত করেছিলেন দেশের অগ্রগণ্য মণীষায়। অর্ধ শতকের বেশি সময় ধরে বাঙালিকে ঋদ্ধ করে যাওয়া অধ্যাপক আনিসুজ্জামানের পথচলা শেষ হল নজিরবিহীন এক সংকটের কালে।

আনিসুজ্জামান স্যার একজন অসাম্প্রদায়িক চেতনার বাতিঘর, সর্বজনশ্রদ্ধেয় ব্যক্তিত্ব। অনেকের মতো তাঁর সান্নিধ্য পেতে আমারও প্রবল আকাক্সক্ষা ছিল। খুব সম্ভবত ২০০৭ সালের প্রথম দিকে সে আকাঙ্খার প্রতিফলন ঘটে। বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত আমার কিছু লেখার নিয়ে বই করার অভিপ্রায়ে তাঁর উপদেশ-পরামর্শ পাওয়ার জন্য মনে খুব প্রবল তাগিদ অনুভব করছিলাম সে সময়। আমার অকৃত্রিম শুভাকাক্সক্ষী প্রিয় ব্যক্তিত্ব চট্টগ্রামের দৈনিক আজাদী পত্রিকার বর্তমান যুগ্ম সম্পাদক, শিশু সাহিত্যিক-সাংবাদিক রাশেদ রউফ ভাইয়ের কাছ থেকে তাঁর মোবাইল নাম্বার সংগ্রহ করলাম। রাশেদ ভাইকে শুধু বলেছি, আমাকে আনিসুজ্জামান স্যারের নাম্বারটা একটু দিবেন? একবারো তিনি জিজ্ঞেস করেননি, কেন কি কাজে দরকার তাঁকে? শুধু বললেন, তুমি আগে তাঁর মোবাইলে তোমার পরিচয় দিয়ে এসএমএস করবে, পরে ফোন দিয়ে কথা বলবে। রাশেদ ভাই এর সাহস জাগানিয়া পরামর্শে স্যারকে প্রথমে মুঠোফোনে ক্ষুদেবার্তা দেয়ার পর ফোন দিয়ে বললাম, আমি একটু আপনার সাথে দেখা করতে চাই। আমার একটা বই প্রকাশ এর ব্যাপারে আপনার পরামর্শ চাই। অকপটেই তিনি তাঁর বাসার ঠিকানা আমাকে জানালেন। বললেন, যখনই আসবে ফোন দিয়ে আসবে। বাসা ছিল ঢাকার গুলশানে। একদিন ফোন দিলে তিনি আমাকে ওইদিন বিকেল ৪টায় যেতে বলেন। বাসার দরজায় গিয়ে বুকটা ধুরু ধুরু করছে, ভাবছি এমন একজন বড় মাপের ব্যক্তিত্বের দোরগোড়ায় আজ আমি আসতে পারলাম! দরজায় বড় করে নেমপ্লেট আছে আনিসুজ্জামান। নামের আগে পিছে আর কিছুই লিখলেন না, অধ্যাপক বা ডক্টর কিছুই না! কলিং বেল দিয়ে ঢুকতেই একজন দরজা খুলে নিয়ে গেলেন ড্রয়িং রুমে। ড্রয়িং রুম তো নয় যেন বিশাল একটা লাইব্রেরি। মূল দরজা থেকে ড্রয়িং রুমটা একটু ভেতরে। ড্রয়িং রুম পর্যন্ত যেতে যেতে যতই চোখ পড়ছে, শুধু বুক সেলফে থরে থরে সাজানো বই আর বই। মাঝে একটা টেবিলে কিছু বই এলোমেলো হয়ে আছে। তখন আমার সেই শোনা কথা মনে পড়ে গেল, আনিসুজ্জামান স্যার যখন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের যোগদানের উদ্দেশ্যে ক্যাম্পাস ত্যাগ করেন তখন স্যারের ব্যক্তিগত জিনিষপত্রের মধ্যে নাকি শুধু এক ট্রাক বই ছিলো!

বাসার ড্রয়িং রুমে গিয়ে আমি বসলাম। মাত্র ৩/৪ মিনিটের মধ্যেই স্যার আমার সামনে আসলেন। স্নিগ্ধব্যক্তিত্বের মহীরুহ অধ্যাপক আনিসুজ্জামান আমার সামনে, ভাবতেই যেন স্বপ্নের মতো লাগছে। রাশেদ রউফ ভাই এর প্রসঙ্গ টেনে নিজের পরিচয় দিলাম। আমার হাতে কাগজপত্রের ফাইল দেখে বললেন, দাও দেখি কি এনেছো? আমার সম্পাদিত সমাজ-সাহিত্য-সংস্কৃতি বিষয়ক পত্রিকা অমিতাভ এর কয়েকটি সংখ্যা তাঁর হাতে তুলে দিলাম। দুয়েকটা উল্টিয়ে দেখলেন আর বললেন, ভালো তো, চট্টগ্রাম থেকে এটি বের হচ্ছে! এরই মধ্যে আমার আসার উদ্দেশ্য জানালাম এবং পাণ্ডুলিপিটা দিলাম। বললাম আমার নিজের প্রকাশিতব্য বইয়ের একটা ভূমিকা আপনাকে লিখে দিতে হবে। তিনি কিছুক্ষণ আমার লেখাগুলো দেখলেন। অতি সহজেই বুঝেছেন, আমার লেখাগুলো কি ধরনের? বললেন, শ্যামল তোমার লিখা তো খারাপ না, ভালোই। তবে এগুলো ক্রিয়েটিভ লিখা, আমি এর ভূমিকা লিখার চাইতে তুমি একজন ক্রিয়েটিভ রাইটার এর কাছ থেকে ভূমিকা লিখিয়ে নিতে পারো। আমি এ ধরনের রচনার ভূমিকা লিখতে অভ্যস্ত না। বললাম, স্যার আপনি কার কাছে যেতে বলছেন? তিনি বললেন, তুমি ইমদাদুল হক মিলন কিংবা আনিসুল হকের কাছে যেতে পারো। তারা যদি সময় দেয় তবে ভাল হবে। সে যাই হোক, আনিসুজ্জামান স্যার সেদিন ২০ মিনিটের সাক্ষাত শেষে আমাকে ফিরিয়ে দিলেও মোটেও হতাশ হইনি। কারণ, তিনি বই এর ভূমিকা লেখায় অপারগতা প্রকাশ করলেও অন্তত তাঁর সান্নিধ্য পেয়েছি, আমার লেখার স্বীকৃতি পেয়েছি, যা আমার জন্য বড় পাওয়া। অথচ সে সময় পত্র-পত্রিকায় আমার খুব একটা বেশি লেখালেখি করা হয়ে ওঠেনি। মিতভাষী, পরিমিতিবোধসম্পন্ন একজন উদার চিত্তের অধিকারী ব্যস্ত এই মানুষের বেশিক্ষণ মূল্যবান সময় নষ্টের ধৃষ্টতা না দেখিয়ে বিদায় নেয়ার প্রাক্কালে বললাম, স্যার একদিন চট্টগ্রামে আমাদের কোন অনুষ্ঠানে আপনাকে পাওয়ার আশা করছি। বললেন, শরীর-স্বাস্থ্য ভাল থাকলে যাবার চেষ্টা করবো অবশ্যই। এরপর কয়েকবার তাঁর সাথে ফোনে যোগাযোগ আমার হয়েছিল। যে যাত্রায় নিজের একটা বই বের করতে উঠে-পড়ে লাগলেও দুঃখের বিষয় নানা সমস্যায় আজো আমার সেই বই বের করা সম্ভব হয়ে ওঠেনি। আর আনিসুজ্জামান স্যারকেও আমাদের কোন অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানোর সুযোগ হয়নি। মনের মধ্যে এই আক্ষেপটা আমার রয়েই গেলো যা আর কোনদিন পূরণ হবার নয়। উল্লেখ্য প্রথমবারই স্যারের সান্নিধ্যে শিখেছি, ফলবান বৃক্ষ নত হয় এবং তার কোন আমিত্ব থাকতে নেই! প্রথম সাক্ষাতেই আমি বুঝেছি, তাঁর মধ্যে নেই কোন অহমিকা বা নেই নিজেকে ধরাছোঁয়ার বাইরে রাখার প্রবণতা। অথচ দেশের একজন শীর্ষস্থানীয় বুদ্ধিজীবি, একজন পুরোদস্তুর ব্যস্ত সময়ের কান্ডারি আমার মতো ক্ষুদ্র মানুষকে এড়িয়ে যেতে পারতেন, বাসায় দেখা করার অনুমতি নাও দিতে পারতেন।

পরের বছরে শেষ যে-বার স্যারের সাথে যখন দেখা হয় তখন বললাম. স্যার আমাকে চিনেছেন, আপনার বাসায় দেখা করেছিলাম বই প্রকাশের ব্যাপারে?। চোখে স্নেহভাজনের অনুনয়, সাথে সাথেই বললেন, হুমম মনে পড়েছে, ভাল আছো? ২০০৮ সালের ২৭ জানুয়ারি জাতীয় প্রেস ক্লাব, ঢাকা এর কনফারেন্স লাউঞ্জে ছিল প্রথিতযশা সাহিত্যিক-সাংবাদিক বিমলেন্দু বড়ুয়ার ১ম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে স্মরণ সভা। সাংবাদিক বিমলেন্দু বড়য়া মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশন আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে আনিসুজ্জামান স্যার প্রধান অতিথি ছিলেন। আমি সেই শোকসভায় উপস্থিত থেকে প্রয়াত বিমলেন্দু বড়ুয়ার জীবনী পাঠ করি। অনুষ্ঠান শেষে একান্ত আলাপচারিতায় আমি তাঁকে কিছু প্রশ্ন করেছিলাম। তন্মধ্যে চট্টগ্রামের সাহিত্যচর্চা সম্পর্কে আপনার মূল্যায়ন প্রশ্নের জবাবে তিনি বললেন, চট্টগ্রামে সাহিত্যচর্চা বা লেখালেখি করছেন অনেকেই আছেন। অনেকেই স্বপ্রতিভায় উদ্ভাসিত হচ্ছেন, তবে উপন্যাস লেখকের খুব অভাব, উপন্যাস চর্চাটা সেভাবে হয়ে ওঠেনি। তাঁর মোটা ফ্রেমের চশমার আড়ালে স্নেহঘন দৃষ্টিতে আমার কাঁধে হাত রেখে কথাগুলো বলছিলেন, আমিও তন্ময় হয়ে তাঁর দিকে একদৃষ্টিতে তাকিয়ে শুনছিলাম। অথচ সেদিনের পর তাঁর যে আর সান্নিধ্য পাবো না, তা ঘুণাক্ষরেও চিন্তা করিনি।

তাঁকে দেখে সবসময় মনে হয়েছে একজন আপাদমস্তক মানুষ। তাঁর অসাধারণ রুচিতে, বাকসংযমে, পরিমিতিবোধে, স্নিগ্ধব্যক্তিত্বে, স্নেহময় সম্বোধনে, স্বভাবমাধুর্যে প্রথম পরিচয়ের দিন থেকেই জেনেছি তিনি আমার আত্মজন। মনে হচ্ছে আত্মার একটি অংশ বুঝি এখন আর নেই।

এ কথা সত্য যে, পলিমাটির এই ছোট্ট বদ্বীপে আমাদের অভিভাবক হয়ে ওঠা বিরলপ্রজ এ মানুষটির মত মানুষের জন্ম আর হবে না! তাঁর মৃত্যু একটি গৌরবময় অধ্যায়ের অবসানের সংকেতবহ। তাঁর সৃষ্টি, তার অনুকরণীয় আদর্শ এক অমূল্য সম্পদ হয়ে থাকবে অনন্তকাল এই বিপুলা পৃথিবীর যেকোন প্রান্তে থাকা বাঙালির কাছে। স্যার যেখানেই থাকুন ভাল থাকুন, ভক্তিপ্রণত চিত্তে আপনাকে জানাই অকৃত্রিম শ্রদ্ধা ও ভালবাসা।

বাংলাদেশ, ১৯ মে ২০২০ মঙ্গলবার ০৮:১০ পিএ


বাবুই শিশুসাহিত্য পাণ্ডুলিপি পুরস্কার ঘোষণা
   বাবুই শিশুসাহিত্য পাণ্ডুলিপি পুরস্কার ঘোষণা
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | কাছেদূরে.কম  বিস্তারিত


বই আলোচনা: রবীন্দ্রজীবনে ও সাহিত্যে চট্টগ্রাম
   বই আলোচনা: রবীন্দ্রজীবনে ও সাহিত্যে চট্টগ্রাম

গোলাম কিবরিয়া ভূঁইয়া

বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর (১৮৬১-১৯৪৬) তাঁর বিপুল সাহত্যিকর্মে মানব জীবনের নানা প্রসঙ্গ উপস্থাপন করেছেন। তাঁর লেখা গল্প, কবিতা, গান, প্রবন্ধ ইত্যাদি সবকিছুই বিশ্ব সাহিত্যে র্চিথায়ী আসন লাভ করেছে।
বিস্তারিত


অশোক দ্যা গ্রেট : বুদ্ধের অহিংস নীতি প্রচারে যিনি অদ্বিতীয়
   অশোক দ্যা গ্রেট : বুদ্ধের অহিংস নীতি প্রচারে যিনি অদ্বিতীয়

শ্যামল চৌধুরী

প্রাচীন ভারতবর্ষের ইতিহাসে দুজন রাজাকে গ্রেট উপাধি দেয়া হয়েছে তাদের একজন হলেন অশোক দ্যা গ্রেট আরেকজন আকবর দ্যা গ্রেট। বিশেষভাবে লক্ষ্যণীয় যে, হিন্দু অধ্যুষিত ভারতে একজন হিন্দু রাজাও এই উপাধি লাভ করতে সক্ষম হয়নি। অশোক প্রথম জীবনে বৈদিক ধর্মের অনুসারী হলেও পরে বৌদ্ধধর্ম গ্রহণ করেন আর আকবর মুসলিম (আসলে মুরতাদ বা ধর্মত্যাগী কারণ তিনি পরে নিজেই দ্বীন এ এলাহী ধর্ম প্রবর্তন করেন যাতে সব ধর্মের সংমিশ্রণ ঘটান যা ইসলামে সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ)।
বিস্তারিত


অনন্যা সাহিত্য পুরস্কার পেলেন বেগম মুশতারী শফী
   অনন্যা সাহিত্য পুরস্কার পেলেন বেগম মুশতারী শফী

সংস্কৃতি ডেস্ক | কাছেদূরে ডটকম

চট্টগ্রাম: মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক প্রবন্ধ, স্মৃতিকথা, সৃজনশীল সাহিত্য সাহিত্যসংগঠক হিসেবে বাংলাদেশের সাহিত্যে বিশেষ অবদান রাখার জন্য অনন্যা সাহিত্য পুরস্কার পেলেন বিশিষ্ট লেখক মুক্তিযোদ্ধা বেগম মুশতারী শফী
বিস্তারিত


গল্পলোকের মানচিত্র: ভিন্নধর্মী আয়োজন
   গল্পলোকের মানচিত্র: ভিন্নধর্মী আয়োজন

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | কাছেদূরে ডটকম

বর্ণিলতার আবেশে গা ভাসিয়ে চলতে যেমন পছন্দ করি আমরা সবাই তেমনি সংস্কৃতিচর্চায় নতুনত্বের আবেশ থাকাটাও অতি আবশ্যক। অথচ গতানুগতিক কিংবা সেকেলে আয়োজন কতটুকুই বা হৃদ্ধ করতে পারে সংস্কৃতিপ্রেমীদের অন্তর্জগতকে? আর তাই বুঝি গল্পপাঠের মেলা বসেছিল চট্টগ্রামের জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে।

বিস্তারিত


প্রসঙ্গ : ৭ই মার্চের ভাষণ ও পথপ্রান্তে অবহেলিত মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের কবর
   প্রসঙ্গ : ৭ই মার্চের ভাষণ ও পথপ্রান্তে অবহেলিত মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের কবর

শিমুল বড়য়া

ডিসেম্বর মাস বিজয়ের মাস, স্মৃতিকাতরতার মাস, বিগত বছরের ভুল-ভ্রান্তি-প্রাপ্তি মূল্যায়নের মাস, সর্বোপরি তারই প্রেক্ষিতে সুন্দর আগামী বিনির্মাণের জন্য কর্মসূচি প্রণয়নের মাস।

বিস্তারিত


বিজয়ের ছড়া-বিজয়ের কবিতা
   বিজয়ের ছড়া-বিজয়ের কবিতা

নয়টি মাস

বিলকিস বি পলি

 

দীর্ঘ নয়টি মাস,

বিষাদের ঔরসে লালিত হয়ে

বিশ্বের সবুজাভ মানচিত্রে,

জ্বলজ্বলে রক্তিম সূর্য হয়ে

জন্ম তোমার হে স্বদেশ।

 

নয়, নয়টি মাস

তোমার করতলে দাপিয়ে বেড়িয়েছে

হানাদার, রাজাকার, আলবদর,

বেয়নেটে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে তোমায়

রক্তাক্ত করেছে  চরম হিংস্রতায়।

তোমার বুকের আঁচল কেড়ে নিয়ে

আদিম উন্মাদনায় মেতেছিলো পাশবিক নির্যাতনে,

তোমার পেলব কোলে চিরুনি অভিযান চালিয়ে

সাধারণ যাপিত জীবন করেছিলো বিপন্ন

নির্বিচারে স্তূপীকৃত লাশের পাহাড় গড়ে।

 

নয়, নয়টি মাস

অসহায় শিশুর করুণ আর্তনাদ ছিলো

মৃত মায়ের কোলজুড়ে,

সদ্য বিবাহিতা তরুণীর গগণবিদারী বিলাপ ছিলো

প্রিয়তম স্বামীর লাশ না পেয়ে,

মমতাময়ী মা বাকি জীবন অন্ন মুখে নেয়নি

আদরের সন্তানকে খাওয়াতে না পেরে,

স্নেহময় পিতার দুচোখে খরা নেমেছিলো

একমাত্র ছেলেটাকে হারিয়ে।

 

নয়, নয়টি মাস পরে

সমস্ত সম্ভোগের বিশদ সর্বনাশ শেষে,

বিষাদের আকাশকে বিজয়ের হাসিতে

অতিক্রম করে,

১৬ই ডিসেম্বর গোধূলিলগ্নে জন্ম নিলো

পবিত্র এক শিশু, যার নাম বাংলাদেশ।

বিস্মৃতির কফিনে অনন্ত বিনাশের

সমস্ত আঁকিবুকি বন্দী করে,

প্রতিটি রক্তের ফোঁটা

চুমুর আদরে আদরে ভরিয়ে দিয়ে,

রোমে রোমে দেশপ্রেমের শিহরণ জাগিয়ে

আগলে রাখবো এই দেশ, আমার বাংলাদেশ।

বিস্তারিত


শাওনের বয়ানে হুমায়ূনের অজানা অধ্যায়
   শাওনের বয়ানে হুমায়ূনের অজানা অধ্যায়

শিল্প-সাহিত্য ডেস্ক | কাছেদূরে ডটকম


হুমায়ূনের বায়োপিক চলচ্চিত্র ডুব নিয়ে বিতর্কের রেশ কাটতে না কাটতেই এবার বইমেলায় আসছে নন্দিত কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের জীবনী নিয়ে সাক্ষাৎকার ভিত্তিক বই। হুমায়ূনপত্নী মেহের আফরোজ শাওনের সাক্ষাৎকারে বইটি লিখছেন কবি শোয়েব সর্বনাম।
বিস্তারিত


বাংলা সাহিত্যে আবদুল কাদিরের অবদান স্মরণীয়: আনিসুজ্জামান
   বাংলা সাহিত্যে আবদুল কাদিরের অবদান স্মরণীয়: আনিসুজ্জামান

শিল্প-সাহিত্য ডেস্ক | কাছেদূরে ডটকম

ঢাকা: বাংলা সাহিত্যে কবি, ছান্দসিক ও নজরুল গবেষক আবদুল কাদিরের অবদান স্মরণযোগ্য। তার সাহিত্যচর্চা আমাদেরকে অনেক দূর এগিয়ে দিয়েছে। এখন তাকে আমরা স্মরণ করলে আমরা নিজেরাই লাভবান হবো বলে মন্তব্য করেছেন এমিরিটাস অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান।
বিস্তারিত


ছাপচিত্র প্রদর্শনী : সভ্যতার ইতিহাস
   ছাপচিত্র প্রদর্শনী : সভ্যতার ইতিহাস

শিল্প-সাহিত্য ডেস্ক | কাছেদূরে ডটকম

উডকাট, লিথোগ্রাফ কিংবা ইনটাগলিও- এই তিন মাধ্যমের ছাপচিত্রে উঠে এসেছে সভ্যতার নানা ইতিহাস।
বিস্তারিত


পশ্চিমবঙ্গে বিশ্ববাংলা কবিতা উৎসব শুরু ২৭ জানুয়ারি
   পশ্চিমবঙ্গে বিশ্ববাংলা কবিতা উৎসব শুরু ২৭ জানুয়ারি

শিল্প-সাহিত্য ডেস্ক | কাছেদূরে ডটক

পশ্চিমবঙ্গের হলদিয়ায় ২৭ জানুয়ারি শুরু হচ্ছে তিনদিনের বিশ্ববাংলা কবিতা উৎসব-২০১৮।
বিস্তারিত


চট্টগ্রামের প্রবাদ-প্রবচন : বাংলার লোকসংস্কৃতি চর্চায় মূল্যবান সংযোজন
   চট্টগ্রামের প্রবাদ-প্রবচন : বাংলার লোকসংস্কৃতি চর্চায় মূল্যবান সংযোজন

হাসান মেহেদী:

বাংলা ভাষা হাজার বছরের ঐতিহ্যে ঋদ্ধ। বিচিত্র-সংস্কৃতি আর বর্ণিল পেশার জনগোষ্ঠীর এই ভাষার রয়েছে অগণিত উপভাষা। পাহাড়-টিলা আর নদী-বিধৌত চট্টগ্রামের এবং পাশের জেলা কক্সবাজারের বিশাল এক জনগোষ্ঠীর কথ্য ভাষা  চট্টগ্রামের এই উপভাষা। 

বিস্তারিত


মহাকবি মধুসূদনের নামে ওয়েবসাইট চালু
   মহাকবি মধুসূদনের নামে ওয়েবসাইট চালু

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | কাছেদূরে ডটক

যশোর : মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের নামে ওয়েবসাইট ও ফেসবুক পেজের উদ্বোধন করা হয়েছে।

শুক্রবার (২৬ জানুয়ারি) রাতে যশোরের কেশবপুর উপজেলার সাগরদাঁড়িতে মধুমেলার সমাপনী অনুষ্ঠানে খুলনার বিভাগীয় কমিশনার লোকমান হোসেন মিয়া এ ওয়েবসাইটের (http://michaelmadhusudandutta.com)  উদ্বোধন করেন।
বিস্তারিত


ঢাকা আর্ট সামিট শুরু শুক্রবার, থাকছে বিশেষ চমক
   ঢাকা আর্ট সামিট শুরু শুক্রবার, থাকছে বিশেষ চমক

শিল্প-সাহিত্য ডেস্ক | কাছেদূরে ডটক

দক্ষিণ এশীয় শিল্পের নতুন এক দিগন্তকে উন্মোচন করতে ২ ফেব্রুয়ারি (শুক্রবার) শুরু হচ্ছে ঢাকা আর্ট সামিট (ডাস)। বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে এ সামিট চলবে ১০ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।
বিস্তারিত


বইমেলায় নির্মাতা ও নায়িকার বই
   বইমেলায় নির্মাতা ও নায়িকার বই

শিল্প-সাহিত্য ডেস্ক | কাছেদূরে ডটকম

চলতি বছর মুক্তি পেতে যাচ্ছে আহসান সারোয়ার নির্মিত চলচ্চিত্র রং ঢং। চলচ্চিত্রটিতে অভিনয় করেছেন চিত্রনায়িকা সেরা যামান। একুশে গ্রন্থমেলায় একই প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত হয়েছে চলচ্চিত্রটির নির্মাতা ও নায়িকা দুজনেরই গ্রন্থ।
বিস্তারিত


মনিরউদ্দীন ইউসুফের হাত ধরে অনুবাদ সাহিত্য  সমৃদ্ধ হয়েছে
   মনিরউদ্দীন ইউসুফের হাত ধরে অনুবাদ সাহিত্য সমৃদ্ধ হয়েছে

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট । কাছেদূরে ডটকম

সাহিত্যিক মনিরউদ্দীন ইউসুফ বাংলা সাহিত্যের অনুবাদ শাখাকে সমৃদ্ধ করেছেন বলে জানিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এমেরিটাস অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান। শুক্রবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে বাংলামটরে বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের পাঠচক্র হলে মননশীল সাহিত্যিক মনিরউদ্দিন ইউসুফের জন্মশতবর্ষ উদযাপনের বছরব্যাপী অনুষ্ঠানের সূচনা ও আলোচনা সভায় এ কথা বলেন।
বিস্তারিত


সেলফি শিকারীদের পাল্লায় শিক্ষামন্ত্রী
   সেলফি শিকারীদের পাল্লায় শিক্ষামন্ত্রী

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট । কাছেদূরে ডটকম

অমর একুশে গ্রন্থমেলায় সেলফি শিকারীদের পাল্লায় পড়তে হলো শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদকে। প্রায় ৩০ মিনিটেরও বেশি সময় তরুণ-তরুণীদের সেলফিতে হাসিমুখে পোজ দিয়ে তবেই রেহাই মিললো তার।
বিস্তারিত


সাঙ্গ হলো বই মেলা, বিক্রি বেড়েছে ৫ কোটি টাকার বেশি
   সাঙ্গ হলো বই মেলা, বিক্রি বেড়েছে ৫ কোটি টাকার বেশি

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | কাছেদূরে ডটক

মাসব্যাপী অমর একুশে বইমেলায় সব মিলিয়ে ৭০ কোটি ৫০ লাখ টাকার বই বিক্রি হয়েছে, যা গত বছরের চেয়ে ৫ কোটি টাকার বেশি বাংলা একাডেমির তথ্য অনুযায়ী, ২০১৭ সালে ৬৫ কোটি ৪০ লাখ টাকার বই বিক্রি হয়েছিল, যা ছিল তার আগের বছরের চেয়ে ২৩ কোটি টাকা বেশি

বিস্তারিত


৭ই মার্চের ভাষণের উপর লেখা গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন
   ৭ই মার্চের ভাষণের উপর লেখা গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | কাছেদূরে ডটক

৭ই মার্চের ভাষণ কেন বিশ্ব-ঐতিহ্য সম্পদ: বঙ্গবন্ধু মুক্তিযুদ্ধ বাংলাদেশ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১ মার্চ) সন্ধ্যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মোজাফ্‌ফর আহমেদ চৌধুরী মিলনায়তনে গ্রন্থটির মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। প্রধান বক্তা ছিলেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।

বিস্তারিত


জাতীয় জাদুঘরে পটচিত্র প্রদর্শনী
   জাতীয় জাদুঘরে পটচিত্র প্রদর্শনী

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | কাছেদূরে ডটক

মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে চিত্রপটে বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ শিরোনামে পটুয়া নাজির হোসেন এর ৩২তম একক পটচিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধন করা হয়েছে। শুক্রবার (০২ মার্চ) বিকেলে বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘরের দ্বিতীয় তলার গ্যালারিতে প্রদর্শনীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

বিস্তারিত


স্বাধীনতা দিবস উদযাপনে সংস্কৃতি অঙ্গনের যত আয়োজন
   স্বাধীনতা দিবস উদযাপনে সংস্কৃতি অঙ্গনের যত আয়োজন

শিল্প-সাহিত্য ডেস্ক | কাছেদূরে ডটক

বর্ণিল সব আয়োজনে দেশের ৪৮তম স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপন করেছে জাতি। সোমবার (২৬ মার্চ) ভোরের সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গেই ঢাকাসহ সারাদেশের আনাচে-কানাচে শুরু হয় স্বাধীনতা দিবসের নানা আয়োজন। দিনভর জাগরণের গণসঙ্গীত, নাচ, নাটক, চিত্রাঙ্কন, আবৃত্তি আর মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচারণে উৎসবমুখর ছিল রাজধানীর সংস্কৃতি অঙ্গন। গালে স্বাধীনতার রং মেখে, গানের সুরে, কবিতার ছন্দে, নৃত্যের আনন্দে আর চিত্রমালায় স্মরণ হয়েছে একাত্তরের মহাকাব্যিক অধ্যায়।

বিস্তারিত


যারা মুক্তিযুদ্ধে বিশ্বাস করে না, তারা যেন ক্ষমতায় না আসে: ফরিদা ইয়াসমিন
   যারা মুক্তিযুদ্ধে বিশ্বাস করে না, তারা যেন ক্ষমতায় না আসে: ফরিদা ইয়াসমিন

শিল্প ও সাহিত্য ডেস্ক | কাছেদূরে ডটকম

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমিন বলেছেন, যারা মুক্তিযুদ্ধ বিশ্বাস করে না, যারা সম্প্রীতি নষ্ট করে এমন সাম্প্রদায়িক শক্তি যেন ক্ষমতায় না আসে। রবিবার (৪ নভেম্বর) সন্ধ্যায় জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে সম্প্রীতির সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

বিস্তারিত


এ সপ্তাহের গল্প: অপেক্ষা
   এ সপ্তাহের গল্প: অপেক্ষা

সোমা বড়ুয়া রিমি

দিনগুলো বড্ড সুখেই কাটছে। সপ্তাহে শুক্র, শনি দুইদিন বন্ধ। ইরা আর তপু চুটিয়ে সংসার করছে, প্রেম করছে, অফিস করছে। সময়গুলো দ্রুত কেটে যাচ্ছিলো। সামনের ঈদে ওরা হানিমুনে যাওয়ার প্ল্যান করছে।

বিস্তারিত


বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার পাচ্ছেন ১২ জন লেখক
   বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার পাচ্ছেন ১২ জন লেখক

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | কাছেদূরে ডটক

বাংলা সাহিত্যের দশ ক্ষেত্রে বিশেষ অবদান রাখায় ২০১৭ সালের বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার পেতে যাচ্ছেন ১২ জন লেখক।
বিস্তারিত


মধুসূদন পদক পেলেন সাবিনা ইয়াসমিন ও শিমুল বড়ুয়া
   মধুসূদন পদক পেলেন সাবিনা ইয়াসমিন ও শিমুল বড়ুয়া

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | কাছেদূরে ডটক

যশোর: মহাকবি মাইকেল মধুসূদন পদক-২০১৮ পাচ্ছেন সাহিত্য প্রতিভার অধিকারী স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব কবি সাবিনা ইয়াসমিন ও চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড লতিফা সিদ্দিকী ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ শিমুল বড়ুয়া।
বিস্তারিত


একুশের দিনে গ্রন্থমেলায়
   একুশের দিনে গ্রন্থমেলায়

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | কাছেদূরে ডটক

পৃথিবীতে মাতৃভাষার জন্য প্রাণ দেওয়ার ইতিহাস রয়েছে একমাত্র বাঙালি জাতির। ১৯৫২ সালের একুশে ফেব্রুয়ারি মাতৃভাষার মর্যাদা ও অধিকার রক্ষার দাবিতে বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দিয়ে বিশ্বের দরবারে বাংলাদেশকে চিনিয়েছে নতুন করে। সেই একুশ আবার ফিরে এসেছে। আবার এসেছে আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি।

বিস্তারিত


একুশে পদকপ্রাপ্তদের সংবর্ধনা দিলো বেতার-টেলিভিশন শিল্পী সংস্থা
   একুশে পদকপ্রাপ্তদের সংবর্ধনা দিলো বেতার-টেলিভিশন শিল্পী সংস্থা

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | কাছেদূরে ডটক

২০১৮ সালে একুশে পদকপ্রাপ্ত আট গুণীজনকে সংবর্ধনা দিয়েছে বাংলাদেশ বেতার-টেলিভিশন শিল্পী সংস্থা। অনুষ্ঠানে একই সঙ্গে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন, ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ ও মহান স্বাধীনতা দিবস উদযাপনের আয়োজন করা হয়।

বিস্তারিত


অমর একুশে বইমেলায় বেড়েছে পরিসর, প্রকাশনা সংস্থা
   অমর একুশে বইমেলায় বেড়েছে পরিসর, প্রকাশনা সংস্থা

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | কাছেদূরে ডটকম

অমর একুশে গ্রন্থমেলা-২০১৯ এ বেড়েছে পরিসর, একইসঙ্গে বেড়েছে অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে গতবার ২ লাখ ৭৫ হাজার বর্গফুট জায়গাজুড়ে গ্রন্থমেলা আয়োজন হলেও এবার তা বিস্তৃত হয়েছে ৩ লাখ বর্গফুটে।

বিস্তারিত


অঝোর ধারায় ঝরবে বারি, ফুটবে কদম সারি সারি
   অঝোর ধারায় ঝরবে বারি, ফুটবে কদম সারি সারি

শ্যামল চৌধুরী

ম্যানেজিং এডিটর | কাছেদূরে ডটক

 

ঐ আসে ঐ অতি ভৈরব হরষে

জলসিঞ্চিত ক্ষিতি সৌরভ রভষে

ঘনগৌরবে নবযৌবনা বরষা।

বিস্তারিত


মরিতে চাহিনা আমি সুন্দর ভুবনে / মানবের মাঝে আমি বাঁচিবারে চাই
   মরিতে চাহিনা আমি সুন্দর ভুবনে / মানবের মাঝে আমি বাঁচিবারে চাই

ইলা মুৎসুদ্দী

গত ৩ সেপ্টেম্বর এই পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করে চলে গেলেন শহীদ জননী, লেখক, সংগ্রামী নারী সবার প্রিয় রমা দিদি। হয়তো বয়সের ভারে ন্যূজ, বিভিন্ন আসুখে আক্রান্ত হয়েছিলেন ঠিকই কিন্তু মানসিক দৃঢতা ছিল প্রবল। তাইতো হাসপাতালের বিছানায় শুয়ে শুয়ে এটিএন বাংলার সাক্ষাৎকারে তিনি আবৃত্তি করেছেন --- মরিতে চাহিনা আমি সুন্দর ভুবনে, মানবের মাঝে আমি বাঁচিবারে চাই। তিনি এমনিই একজন স্বাধীনচেতা, দৃঢ মনোবলের মানুষ ছিলেন। তিনি সত্যিকার অর্থেই যতদিন বাংলাদেশ নামক ভূখন্ড থাকবে, বাংলাদেশের মানুষের মনে স্বাধীনতার মুক্তিযুদ্ধের চেতনা প্রবাহমান থাকবে ততদিন রমা চৌধুরীর নাম স্মরণীয় হয়ে থাকবে।

বিস্তারিত


পর্দা উন্মোচনের প্রতীক্ষায় বইপ্রেমীরা
   পর্দা উন্মোচনের প্রতীক্ষায় বইপ্রেমীরা

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | কাছেদূরে ডটকম

একুশের চেতনায় ঐতিহ্যের বইমেলার দুয়ার উন্মোচনের বাকি মাত্র দুই দিন।

বিস্তারিত


ঢাকায় শুরু হচ্ছে দ্বিবার্ষিক এশীয় চারুকলা প্রদর্শনী
   ঢাকায় শুরু হচ্ছে দ্বিবার্ষিক এশীয় চারুকলা প্রদর্শনী

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | কাছেদূরে ডটকম

বিশ্বের ৬৮টি দেশের চারুশিল্পীদের অংশগ্রহণে আগামী ১ সেপ্টেম্বর ঢাকায় শুরু হতে যাচ্ছে মাসব্যাপী দ্বি-বার্ষিক এশীয় চারুকলা প্রদর্শনী।

বিস্তারিত


জাতীয় স্বীকৃতিপ্রাপ্ত ১১ গুণীকে অনিরুদ্ধ ট্রাস্টের সংবর্ধনা
   জাতীয় স্বীকৃতিপ্রাপ্ত ১১ গুণীকে অনিরুদ্ধ ট্রাস্টের সংবর্ধনা

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | কাছেদূরে ডটক

সেবার মানসিকতা ও সম্মিলিত চেষ্টায় সমাজের অনেক উন্নয়ন সাধন সম্ভব। কোন কাজই ছোট নয়, চেষ্টা ও সততার সাথে লেগে থাকলে সাফল্য ধরা দেবেই। সকলের জীবনে স্বপ্ন থাকে। যে জাতি ইতিহাসকে সম্মান করতে জানে না তারা গুণীজনকে সম্মান করতে জানে না। গুণীজনকে সম্মান করা মানে দেশকে সম্মান করা। গুণীজনকে সম্মান দেখালে নিজের সম্মান বাড়ে।

বিস্তারিত


চট্টগ্রাম জেলা শিল্পকলা একাডেমির নির্বাচন : ১০ পদে প্রতিদ্বন্দ্বী ৫১
   চট্টগ্রাম জেলা শিল্পকলা একাডেমির নির্বাচন : ১০ পদে প্রতিদ্বন্দ্বী ৫১

শিল্প-সাহিত্য ডেস্ক | কাছেদূরে ডটকম

অবশেষে নির্বাচনের মাধ্যমে চট্টগ্রাম জেলা শিল্পকলা একাডেমির নতুন কার্য নির্বাহী কমিটি গঠিত হতে হচ্ছে। ১৬ বছরের পুরনো অ্যাডহক কমিটি বিলীন হয়ে আজ শনিবার (২১ জুলাই) সকাল নয়টা থেকে ত্রি-বার্ষিক নির্বাচনে ভোট গ্রহণ শুরু হয়েছে। চলবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত।

বিস্তারিত


অয়োময় : স্মৃতির ঝাঁপি খুললেন ছোট মির্জা অত:পর
   অয়োময় : স্মৃতির ঝাঁপি খুললেন ছোট মির্জা অত:পর

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট কাছেদূরে ডটকম

নব্বইয়ের দশকের জনপ্রিয় নাটক অয়োময় এর বিখ্যাত চরিত্র ছোট মির্জা। এ চরিত্রের জনপ্রিয় সংলাপ ছিল আমি বেশি কথা বলতে পছন্দ করি না। ভাটি অঞ্চলের প্রতাপশালী জমিদার পরিবারের সেই ছোট মির্জা চরিত্র প্রায় তিন দশক আগের স্মৃতি রোমন্থন করলেন আবারও।

বিস্তারিত


বাংলা ছোট গল্পের প্রাণ-প্রতিষ্ঠাতা রবীন্দ্রনাথ
   বাংলা ছোট গল্পের প্রাণ-প্রতিষ্ঠাতা রবীন্দ্রনাথ

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | কাছেদূরে ডটক

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ছোট গল্পে বাংলার মানুষের আত্মিক ও জাগতিক মুক্তির কথা জোরালোভাবে ব্যক্ত হয়েছে বলে মত প্রকাশ করেছেন বাংলা সাহিত্যের অধ্যাপক বিশ্বজিৎ ঘোষ। তিনি বলেন, বাংলা ছোট গল্পের প্রাণ-প্রতিষ্ঠাতা রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। তার হাতে ঘটে বাংলা ছোটগল্পের উজ্জ্বল মুক্তি। বর্তমান বাংলাদেশের প্রান্তিক অঞ্চলসমূহে অবস্থান গল্পকার রবীন্দ্রনাথকে নতুন মানব-ভুবনের সন্ধান দিয়েছে। গল্পগুচ্ছর নানা গল্পে উপনেবিশিত বাংলার পরিচয় ধরা আছে।

বিস্তারিত


১৫৭তম জন্মজয়ন্তীতে নানা আয়োজনে কবিগুরুকে স্মরণ
   ১৫৭তম জন্মজয়ন্তীতে নানা আয়োজনে কবিগুরুকে স্মরণ

শিল্প-সাহিত্য ডেস্ক | কাছেদূরে ডটক

কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৫৭তম জন্মজয়ন্তী উপলক্ষে রাজধানীর বিভিন্ন সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠানে ছিল নানা আয়োজন। গান, কবিতা ও কথনে বাঙালির সাংস্কৃতিক-সামাজিক জীবনে বিশ্বকবির প্রভাব নিয়ে হয়েছে বিস্তর আলোচনা।

বিস্তারিত


পাবনায় বৈশাখী উৎসবে দুই বাংলার সাহিত্যিকদের মিলনমেলা
   পাবনায় বৈশাখী উৎসবে দুই বাংলার সাহিত্যিকদের মিলনমেলা

শিল্প-সাহিত্য ডেস্ক | কাছেদূরে ডটক

পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলার চর গড়গড়ি গ্রামে চার দিনব্যাপী শুরু হয়েছে বৈশাখী উৎসব ও বাংলা সাহিত্য সম্মেলন। দুই বাংলার শতাধিক কবি সাহিত্যিকদের অংশগ্রহণে মিলন মেলায় পরিণত হয়েছে চরনিকেতন কাব্যমঞ্চ। উৎসবে বাংলাদেশের অর্ধশত এবং ভারতের প্রায় ২৫ জন কবি সাহিত্যিকদের প্রাণবন্ত আড্ডায় উৎসব মুখর হয়ে উঠেছে সম্মেলন প্রাঙ্গণ।

বিস্তারিত


পঁচিশে বৈশাখ : কবিগুরুর ১৫৭তম জন্মজয়ন্তী
   পঁচিশে বৈশাখ : কবিগুরুর ১৫৭তম জন্মজয়ন্তী

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | কাছেদূরে ডটক

সময় বদলায়৷ আধুনিকতা থেকে উত্তর আধুনিকতায় যাত্রা করে সময়৷ তবুও বাঙালির মনন ও জীবনজুড়ে প্রাসঙ্গিক তিনি। বাংলার মাটি আর মানুষের অন্তরে ছড়িয়ে আছে তার অপার সৃষ্টি সম্ভার। একাধারে কবি, ঔপন্যাসিক, সংগীতস্রষ্টা, নাট্যকার, চিত্রকর, ছোটগল্পকার, প্রাবন্ধিক ও দার্শনিক- এমন শতদলে বিকশিত বাঙালি শত-সহস্র বছরে জন্মেছে একজনই, তিনি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর৷ আজ আমাদের বিশ্বকবির ১৫৭তম জন্মবার্ষিকী ।

বিস্তারিত


সাহিত্য-সংস্কৃতি প্রকাশের মাধ্যমে মানুষের মননশীলতা বৃদ্ধি পায়: সম্পদ বড়ুয়া
   সাহিত্য-সংস্কৃতি প্রকাশের মাধ্যমে মানুষের মননশীলতা বৃদ্ধি পায়: সম্পদ বড়ুয়া

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | কাছেদূরে ডটক

পত্রিকা প্রকাশের মতো এমন একটি দূরূহ কাজে যারা সম্পৃক্ত থাকেন তাদের মনন মেধা-সৃজনশীলতা অন্য দশজনের তুলনায় ভিন্নতর হয়। তারা তীক্ষ্ণ দৃষ্টি দিয়ে তুলে আনেন দেশ ও সমাজের নানা রকম অসংগতির চিত্র। দীর্ঘ বাইশ বছর পূর্বে পত্রিকার উদ্যোক্তারা যে চেতনায় শুরু করেছিলেন তা আজ সার্থক হয়েছে বলে মনে করি। সাহিত্য-সংস্কৃতি প্রকাশের ধারা যতবেশী এগিয়ে যাবে মানুষের মননশীলতা ততবেশী বৃদ্ধি পাবে।  
বিস্তারিত




ভিডিও (কাছেদূরে টিভি)

ফটো গ্যালারি

  বিজ্ঞাপন প্যানেল







  অনলাইন মতামত

  বিজ্ঞাপন প্যানেল